বাংলাদেশের সত্যিকার বিশ্বকাপ স্কোয়াড হবে ত্রিদেশীয় সিরিজের পর

image_titleদিনটাই শুরুই হলো অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ দল ঘোষণার মধ্য দিয়ে। দুপুর গড়িয়ে বিকেল নামতেই জানা হয়ে গেল, ভারতের বিশ্বকাপ স্কোয়াডও। এরই মধ্যে দুপুরের পর হঠাৎ বিসিবিতে এসে উপস্থিত নাজমুল হাসান পাপনও।
তিনি তো প্রায়ই বিসিবিতে আসেন।

বিসিবি পরিচালকদের সভা থাকলে তো কথাই নেই, মিডিয়া সেশন কিংবা অন্য কোনো কাজ ছাড়াও কখনো কখনো আবাহনীর খেলাতেও তাকে দেখা যায় বিসিবিতে এবং সেটা আজকের দুপুরের দিকেই। তখন একটিও কথা হয় না; কিন্তু নাজমুল হাসান পাপনের আজকের আসা নিয়ে অনেক কথা। নানা গুঞ্জন। জল্পনা-কল্পনার ফানুস শেরে বাংলার আকাশ-বাতাসে।
‘তবে কি বিশ্বকাপ স্কোয়াড আর আয়ারল্যান্ডে তিন ম্যাচ সিরিজের দল চূড়ান্ত করতে, অনুমোদন কিংবা ঘোষণার দিনক্ষণ ঠিক করতেই তার আসা? সেটাকে শুধুই গুঞ্জন ভাবার কোনই কারণ নেই।
নাজমুল হাসান পাপন বিকেলে বোর্ড থেকে যাবার আগে সেটাই জানিয়ে গেলেন, ‘আজ আমি এটাই জানতে এসেছিলাম কবে টিম ঘোষণা করবে কবে। আমার মনে হয় টিম কালকে বা পরশু দিয়ে দিবে।’
অবশ্যই এটা নতুন খবর। এতকাল জানা ছিল, জাগোনিউজ সহ দেশের সব প্রচার মাধ্যমে বারংবার লেখা হয়েছে, দল ঘোষণা ১৮ এপ্রিল। প্র্যাকটিস শুরু হবে ২২ এপ্রিল; কিন্তু বিসিবি সভাপতি জানিয়ে গেলেন কাল (মঙ্গলবার) নয়তো পরশু (বুধবার) দল ঘোষণা করা হবে।
পরে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জানালেন, ‘হ্যাঁ, কাল মঙ্গলবারই দল ঘোষণা।’ পরে বিসিবি পরিচালক ও মিডিয়া কমিটি চেয়ারম্যান জালাল ইউনুসও জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন, ‘মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২ টায় দল ঘোষণা হবে।’
এই দল সাজানো, ক্রিকেটার নির্বাচন নিয়েও বিস্তার কথা-বার্তা শোনা গেছে। নানা গুঞ্জন, আলোচনা-পর্যালোচনাও হয়েছে। খোদ বিসিবি প্রধান দল নিয়ে আগে অনেক কথাই বলেছেন। তা মিডিয়ায় ফলাও করে প্রচারও হয়েছে।

এর বাইরে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নুও সম্ভাব্য বিশ্বকাপ স্কোয়াড নিয়ে মিডিয়ার সামনে কথা বলেছেন।
তাতে দল সম্পর্কে যেমন আগাম ধারনার উদ্রেক ঘটিয়েছে। আবার কিছু বিভ্রান্তিও ছড়িয়েছে। যেমন প্রথমে বলা হয়েছে, ১৭ জনের দল ঘোষণা করা হবে। সেই দল যাবে আয়ারল্যান্ডে। সেখান থেকে ১৫ জনকে বেছে নেয়া হবে।
আবার কাল বিসিবি প্রধান জেলা ও বিভাগীয় ক্রীড়া সংগঠক পরিষদ আয়োজিত লোক ও দেশজ ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে গিয়ে মিডিয়ার সামনে বলেছেন ভিন্ন কথা। সেটা এমন, ‘আমরা ১৫ জনের দল ঘোষণা করবো আগে। আর আয়ারল্যান্ডের মাটিতে তিন জাতি আসর খেলার জন্য আরও দুই থেকে তিনজনকে বাড়তি হিসেবে ডাকা হবে। আয়ারল্যান্ডের ওই তিন জাতি আসরে সে সব তরুণকে পরখ করা হবে। তাদের আবার মূল দল মানে বিশ্বকাপ স্কোয়াডেও বিবেচনা করা হবে।’
এই কথাটিই খটকা বাধিয়ে দিয়েছে অনেকের মনে। ১৫ জনের দল ঘোষণার পর একটি তিন জাতি আসরে আবার কয়েকজন তরুণকে যাচাই-বাছাই করার পর বিশ্বকাপ স্কোয়াডে নেয়া হতে পারে বা নেয়া হবে- এমন বক্তব্য রীতিমত বিভ্রান্তির খোরাক বইকি।
অনেকেরই মনে প্রশ্ন, সেটা কি করে সম্ভব? তা কি করে হয়? ১৫ জনের দল ঘোষণার পর ভিনদেশের এক তিনজাতি টুর্নামেন্টে আরও কয়েকজনের পারফরমেন্স দেখে তাদের মধ্য থেকে একাধিক ক্রিকেটারকে আবার বিশ্বকাপ দলে নেয়ার প্রক্রিয়া কি? তা নিয়ে ধুম্রজাল তৈরি হওয়াই স্বাভাবিক।
অবশেষে বিসিবি প্রধান আজ (সোমবার) বিষয়টি পরিষ্কার করে দিয়েছেন। তিনি জানিয়ে দিয়েছেন, কি করে আগামীকাল দল ঘোষণার পরও আবার আয়ারল্যান্ডে তিনজাতি আসরের পারফরমেন্স দেখে দল চূড়ান্ত করা হবে?
ব্যাপারটা খালি চোখে যতটা গোলমেলে মনে হয়েছিল, আসলে তা নয়। এখন সবাই দল ঘোষণা করে দিলেও আগামী ২৩ মে পর্যন্ত বিশ্বকাপ স্কোয়াডে রদবদল করার সুযোগ থাকবে। এমনকি সেটা করা যাবে আইসিসির কোনো অনুমতি ছাড়াই। এরপর শুধুমাত্র কোনো খেলোয়াড় ইনজুরিতে পড়লেই তার পরিবর্তে অন্য কাউকে দলে নেয়া যাবে।
তাই বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপন আজ জানিয়ে দিলেন, আমরা এখন দল ঘোষণা করলেও আয়াল্যান্ডে তিনজাতি আসরের পারফরমেন্স দেখে তারপরই বিশ্বকাপ স্কোয়াড হবে চূড়ান্ত হবে।
বিসিবি সভাপতির বক্তব্য, ‘আমার প্রাথমিকভাবে একটা ধারনা ছিল যে, ১৮ তারিখের মধ্যে টিম ঘোষণা দিতে হবে এবং সেটা কোনো ইনজুরি না থাকলে সহজে পরিবর্তন করা যাবে না; কিন্তু আমরা এখন জানতে পেরেছি যে, হাতে আরও সময় আছে। অর্থ্যাৎ ২২ মে পর্যন্ত। (আসলে হবে ২৩ মে)। ওই সময়ের মধ্যে উই ক্যান চেইঞ্জ। এবং সেটা কাউকে না বলে, মানে আইসিসির অনুমোদন না নিয়েও করা যাবে। আয়ারল্যান্ডের তিন জাতি আসর শেষ হচ্ছে ১৭ মে (শুরু ৫ মে, বাংলাদেশ ফাইনাল খেললে ১৭, না খেলতে পারলে আরও আগেই শেষ।)’
বিসিবি সভাপতি চান, যেহেতু আইসিসির নিয়ম আছে, এখন একটা দল ঘোষণা করে দিতে হবে। সে কারণে বিসিবিও একটা দল রেডি করেছে, যাদের নাম ঘোষণা করা হবে মঙ্গলবার। বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘তাই আমি তাদের (নির্বাচকদের) বলেছি একটা স্কোয়াড দিয়ে দিতে। আর কয়েকটা কারণে সমস্যাও হচ্ছে। একটা হচ্ছে যে, আমরা যাদেরকে নিয়ে চিন্তা ভাবনা করছি, তাদের ফর্ম ভালো যাচ্ছে না। এটা একটা ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইনজুরি একটা বড় ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। অনেক খেলোয়াড়কেই আমরা ধরেছিলাম বিশ্বকাপ স্কোয়াডে থাকবে; কিন্তু এখনো তারা পুরোপুরি সুস্থ না। ১৫ জনের স্কোয়াডটা এখনই ডিক্লেয়ার করতে এই বিষয়গুলো কন্সিডারেশনে নেয়ার জন্যই একটু সমস্যা হচ্ছিলো। যেহেতু আমাদের হাতে সময় আছে, আমি বলতে এসেছিলাম যে, তোমরা স্কোয়াড দিয়ে দাও ১৫ জনের। বাট ইট ক্যাবি চেইঞ্জড। মে’র ২৩ তারিখ পর্যন্ত সময় আছে। এর মধ্যে যদি কারো ইজুরি থাকে, সে যদি ভালো পারফর্ম করে, তার আসার একটা সুযোগ আছে। বা এখানে ভালো খেলছে না; কিন্তু ট্রাই নেশনে ভালো খেলছে, তাহলে ওদেরকে আমরা নতুনভাবে সুযোগ দিয়ে দেখতে পারি। আমাদের একটা সুযোগ আছে, অপশন আছে এটা চেইঞ্জ করার। এটাই বলার জন্যই এসেছি। টিমটা দেরি না করে দিয়ে দাও।’
পুরনো কথা নতুন করে জানিয়ে দিলেন পাপন, আয়ারল্যান্ডে তিন জাতি টুর্নামেন্টের জন্য আলাদা দল হবে না। ‘আমরা বিশ্বকাপের জন্য ১৫ জনের নাম দিচ্ছি। ট্রাইনেশনে অ্যাট লিস্ট ১৭ জনের নাম যাচ্ছে। সো অ্যাডিশনাল দুজন তো থাকছেই। আমরা ওখান থেকেও ট্রাই করে দেখতে পারব, সেই সুযোগ রয়েছে।’
এআরবি/আইএইচএস/জেআইএম