ডাক্তাররা যে শিক্ষা পেলেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর কাছে

বাংলাদেশে এসে নিজের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে গিয়েছিলেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং এবং সেখানে তিনি যে বক্তব্য দেন, তা নিয়ে বেশ আলোচনা চলছে।
১৯৯১ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশের এই চিকিৎসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ২৮তম ব্যাচের শিক্ষার্থী হয়ে এসেছিলেন তিনি। এরপর এমবিবিএস পাশ করে জেনারেল সার্জারি নিয়ে লোটে শেরিং এফসিপিএস করেছিলেন ঢাকাতেই।
ময়মনসিংহ মেডিকেলের পাশাপাশি কিছুদিন হাতে কলমে কাজ করেছেন ঢাকার স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজেও।


এরপর ২০০২ সালে দেশে ফিরে কয়েক বছর চাকুরীর পর রাজনীতিতে আসেন বন্ধু টান্ডি দর্জির প্রতিষ্ঠিত দলে যোগ দেয়ার মাধ্যমে। মি. দর্জি বর্তমানে ভুটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী, তবে তিনি লোটে শেরিংয়ের মতো ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ থেকেই এমবিবিএস করেছেন।
আর দু'জন কলেজ ছাত্রাবাসের একই কক্ষে থাকতেন।
২০১৩ সালের নির্বাচনে তাদের দল হেরে গেলেও ২০১৮ সালের নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে দেশটির ক্ষমতায় যায় তাদের দল ও প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন লোটে শেরিং।
ডাক্তারদের যে পরামর্শ দিলেন লোটে শেরিং
ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে গিয়ে নিজের সহপাঠী, ছাত্র ও শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য দিয়েছেন তিনি, যার অধিকাংশই ছিলো বাংলায়।
শুরুতেই তিনি শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার প্রস্তুতিতে তাঁর অভিজ্ঞতা শেয়ার করেন।
"শিক্ষক কাল যা পড়াবে তা আমি আগের রাতেই একবার দেখে নিতাম। পরদিন ক্লাসে গেলে স্যার ডেমো দেবে। এবং এর পরেই বন্ধুদের নিয়ে আলোচনা করতাম। ফলে বিষয়টি দু'তিনবার পড়া হয়ে যেতো"।
'দেবতুল্য' ডাক্তার নিয়ে কেন এত ক্ষোভ?
বাংলাদেশে ভুল চিকিৎসায় ক্ষুব্ধ ব্যক্তি যাবেন কোথায়
বাংলাদেশে ক্যান্সার চিকিৎসার ব্যয় নিয়ে দিশেহারা রোগীরা
ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের সাবেক এই শিক্ষার্থী বলেন, এ থেকে শিক্ষাটা হলো: আমরা যদি শিখতে চাই সেটা পড়িয়ে নয়, আলোচনা করতে হবে। শেখার সেরা উপায় হলো আলোচনা করা।
নিজের অসুস্থ হওয়ার পর হাসপাতালে চিকিৎসার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে তিনি বলেন, চতুর্থ বর্ষে থাকার সময় তাঁর পেটে ব্যথা ও অনেক বমি হচ্ছিলো। পরে হাসপাতালের আউটডোরে গিয়েও কাজ হয়নি এবং এক পর্যায়ে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছিলো। কিন্তু তাতেও লাভ হচ্ছিলো না।
"দিন দিনে অবস্থা খারাপ হচ্ছিলো।

একদিন বিকেলে একজন এলেন। আমাকে দেখে বললেন, 'আরে এ ছেলেটাকে এভাবে রাখার কোন মানে হলো এটাতো অ্যাপেন্ডিসাইটিস। আমাদের বললেই হতো।' এরপর আমাকে তিনি বললেন 'প্লিজ ডোন্ট অরি। আমি অপারেশন করবো। কোনো সমস্যা হবেনা। তোমার বাবা-মা দুরে। রাতে অপারেশন হলো এবং দু'সপ্তাহ পর সব ঠিক হলো"।
তিনি বলেন নিজের এ অভিজ্ঞতা থেকে যা তাঁর মাথায় এলো, তা হলো রোগী দেখতে হলে ভালো করেই দেখতে হবে।
"হুট করে প্রেসক্রিপশন দিলে ডায়াগনোসিস মিস হতে পারে এবং আমরা আমাদের কাজ হালকা ভাবে নিলে আরেকজনের জীবনের ক্ষতি হতে পারে। রোগীর সাথে সকাল-সন্ধ্যা, রাত-দিন ডিল করি। আমরা মানিয়ে নিই, কারণ এটা আমাদের কাজ"।
পুরো বক্তৃতায় নানা উদাহরণ তুলে ধরে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী চিকি'কদের উদ্দেশ্যে আরও যেসব পরামর্শ দেন তাহলো:
১. সার্জন হওয়া বা না হওয়া গুরুত্বপূর্ণ নয়, গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ভালো সার্জন হওয়া।
২. আর ভালো সার্জন হতে হলে প্রথমে ভালো মানুষ হতে হবে।
৩. আমাদের সবার মতামত দেয়ার অধিকার আছে। কোন বক্তব্য ভুল বা সঠিক বলে চুড়ান্ত রায় দেয়ার কিছু নেই, যেকোন বিষয়ে ভিন্নমত থাকতেই পারে।
৪. আমরা রোগীর সাথে সব সময় থাকি, কিন্তু রোগীরা সব সময় আমাদের সাথে থাকে না। হয়তো একজন রোগী একবারই আসেন। সেজন্য প্রত্যেক রোগীর প্রতি সর্বোচ্চ মনোযোগ দিতে হবে।
৫. আমরা শুধু মানুষের জীবনের সবচেয়ে কঠিন সময়ে কাজ করি। এটা মনে রাখতে পারলে তা হবে সেরা অর্জন।
৬. শিক্ষকেরা সবসময়ই শিক্ষার্থীদের জন্য আছেন। শিক্ষার্থীদেরও শিক্ষকদের জানতে ও বুঝতে হবে।
৭. উচ্চাভিলাষী হওয়ার দরকার নেই।
৮. নিজের সেরাটা দিন, বাকীটা আল্লাহই আপনাকে দেবেন।
লোটে শেরিং বলেন, ভুটানের চারটি দল নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলো যারা 'মোটামুটি সমমানের ভালো অথবা খারাপ'।
"কিন্তু আমরা (নির্বাচনে) জিতেছি শুধুমাত্র আমাদের হেলথ ম্যানিফেস্টোর জন্য"।