শেষ মুহূর্তের আত্মঘাতী গোলে লিভারপুলের জয়

image_titleঅ্যানফিল্ডে রোববার স্থানীয় সময় বিকালে ২-১ গোলে জেতে লিভারপুল। সেপ্টেম্বরে লিগের প্রথম পর্বে টটেনহ্যামের মাঠেও একই ব্যবধানে জিতেছিল তারা।ম্যাচের শুরু থেকে বল দখলের পাশাপাশি আক্রমণেও এগিয়ে থাকা লিভারপুল ষোড়শ মিনিটে এগিয়ে যায়। বাঁ দিক থেকে অ্যান্ড্রু রবার্টসনের দারুণ ক্রসে লাফিয়ে নেওয়া হেডে জাল খুঁজে নেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড ফিরমিনো।

৩৩তম মিনিটে ডেলে আলির দূরপাল্লার শট ক্রসবার ঘেঁষে বেরিয়ে গেলে সমতায় ফেরা হয়নি অতিথিদের। পাঁচ মিনিট পর লিভারপুলের সাদিও মানের বাঁকানো শট অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।দ্বিতীয়ার্ধের দশম মিনিটে অতিথিদের হ্যারি কেইনের কোনাকুনি শট ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক আলিসন। ফিরতি বল ফাঁকায় পেয়ে এরিকসেনের নেওয়া শট এক জনের পায়ে লেগে প্রতিহত হয়।৭০তম মিনিটে আচমকা এক আক্রমণে সমতায় ফেরে টটেনহ্যাম। মাঝমাঠ থেকে কেইনের দ্রুত নেওয়া লম্বা ফ্রি কিকে ইংলিশ ডিফেন্ডার কিরান ট্রিপিয়ার দারুণভাবে বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ডি-বক্সে এরিকসেনকে বাড়ান। তার পাস ছোট ডি-বক্সের বাইরে পেয়ে প্লেসিং শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার লুকাস মউরা।আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে জমে ওঠা লড়াইয়ের ৮৫তম মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার সহজ সুযোগ নষ্ট হয় টটেনহ্যামের। প্রতি আক্রমণে গোলরক্ষককে একা পেয়ে উড়িয়ে মারেন ফরাসি মিডফিল্ডার মুসা সিসোকো। দুই মিনিট পর ইংলিশ মিডফিল্ডার আলির বাঁকানো শট ক্রসবার ঘেঁষে বেরিয়ে গেলে আবারও বেঁচে যায় লিভারপুল।নির্ধারিত সময়ের শেষ মিনিটে মোহামেদ সালাহর কোনাকুনি হেড ঠেকিয়ে দেন ফরাসি গোলরক্ষক উগো লরিস; তবে বিপদমুক্ত করতে পারেননি। ফিরতি বল গোলমুখে টটেনহ্যামের বেলজিয়ান ডিফেন্ডার টবি আল্ডারভাইরেল্ডের পায়ে লেগে গোললাইন পেরিয়ে যায়।৩২ ম্যাচে ২৪ জয় ও সাত ড্রয়ে শীর্ষে ওঠা লিভারপুলের পয়েন্ট ৭৯। শনিবার অবনমন অঞ্চলের দল ফুলহ্যামের মাঠে ২-০ গোলে জেতা ম্যানচেস্টার সিটি ২ পয়েন্ট কম নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে নেমে গেছে। পেপ গুয়ার্দিওলার দল অবশ্য এক ম্যাচ কম খেলেছে।তৃতীয় স্থানে থাকা টটেনহ্যামের পয়েন্ট ৬১।

গোল ব্যবধানে তাদের চেয়ে পিছিয়ে আছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।৩০ ম্যাচে ৬০ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচ নম্বরে আছে আর্সেনাল। রোববার প্রথম ম্যাচে কার্ডিফ সিটির মাঠে ২-১ গোলে জেতা চেলসি ৬০ পয়েন্ট নিয়ে ষষ্ঠ স্থানে আছে। ৩১ ম্যাচ খেলেছে মাওরিসিও সাররির দল।।