কোভিড-১৯ শনাক্তে ল্যাব দ্বিগুণ বেড়ে ‘এপ্রিলে ২৮ হবে’

image_titleকোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ এতথ্য জানান।তিনি বলেন, এর মধ্যে ঢাকায় নয়টি এবং ঢাকার বাইরে আরও পাঁচটিসহ মোট ১৪টি ল্যাবে পরীক্ষা শুরু করেছে। পরীক্ষার সংখ্যা আরও বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সারাদেশে আমাদের প্রক্রিয়া সম্প্রসারণ করছি।

আমরা মনে করি, এপ্রিল মাস শেষ হওয়ার আগেই অন্তত ২৮টি প্রতিষ্ঠানে এই পিসিআর ল্যাবরেটরি স্থাপন করা হবে। সেগুলোতে পরীক্ষাও শুরু করা যাবে। এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে প্রত্যেকটি বিভাগে নভেল করোনাভাইরাস শনাক্তের আরটি-পিসিআরের জন্য মেশিন বসানোর ও পরীক্ষার কাজ শুরু হবে বলে আশ্বস্ত করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডিজি।নভেল করোনাভাইরাসের পরীক্ষা নিয়ে উদ্বিগ্ন  না হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, এ মুহূর্তে ৭১ হাজার কিট মজুদ রয়েছে। আরও কিট আসার পথে রয়েছে। সব পরীক্ষাগারে পিসিআর কিট সরবরাহ করা হয়েছে।  আমরা মনে করছি পিসিআর পরীক্ষার সংখ্যা বাড়াব এবং অতিরিক্ত পিসিআর পরীক্ষার জন্য যে কিট প্রয়োজন হবে তা সরবরাহের অভাব হবে না-এটা আমরা নিশ্চিত করতে পারি। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক জানান, এখন পর্যন্ত ৪ লাখ ২৮ হাজার ৬০টি পিপিই সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩ লাখ ৬৬ হাজার ৬৫০টি পিপিই বিতরণ করা হয়েছে; মজুদ আছে ৬৪ হাজার ৪১০টি। যেখানে যখন পিপিই প্রয়োজন সেখানে তা বরাদ্দ দেওয়া হবে। সংগ্রহ এবং বিতরণ ব্যবস্থা আমরা অব্যাহত রেখেছি। ।