কিট তৈরির কাঁচামালের অপেক্ষায় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র

image_titleসে কারণেই নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্তকরণে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত কিট তৈরিতে বিলম্ব হচ্ছে বলে বুধবার জানিয়েছেন ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।তবে শিগগিরই কাঁচামাল হাতে পাওয়ার আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, হতাশার কিছু নাই। অন্য প্রস্তুতি আমরা নিয়ে রেখেছি। শুধু কাঁচামাল আসা বাকি।

বিমানের ফ্লাইট বন্ধ হয়ে যাওয়াতে বিলাত থেকে আমাদের যে কাঁচামাল আসার কথা ছিল সেটা আসতে পারছে না। এখন আমরা অলটারনেটিভ সোর্সে কাঁচামাল আনছি। আশা করছি, আগামী সাত দিন লাগবে। রি-এজেন্ট হাতে পেলেই পরবর্তী সাত দিনের মধ্যে মানবদেহে নভেল করোনাভাইরাস শনাক্তকরণে নিজেদের উদ্ভাবিত কিটের নমুনা সরকারের কাছে জমা দেওয়ার প্রত্যাশা করছেন গণস্বাস্থ্যের এই ট্রাস্টি।জাফরুল্লাহ বলেন, আমাদের কিট তৈরির সব প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। আমরা সব রেডি আছি। শুধু কাঁচামাল (রি- এজেন্ট) আসলে ফাইনাল পর্যায়ে যাব। আমাদের টার্গেট ১২-১৩ তারিখের মধ্যে এই কাজটি সম্পন্ন করতে পারব। এতদিন শুধু সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইইডিসিআরের গবেষণাগারে করোনাভাইরাসের পরীক্ষা হত। এখন তাদের তত্ত্বাবধানে দেশের আরও বেশ কয়েকটি হাসপাতালে এই সুবিধা সম্প্রসারণ করা হয়েছে। সব জায়গায়ই আমদানি করা কিট ব্যবহার করা হচ্ছে।এদিকে বিশ্বজুড়ে নভেল করোনাভাইরাস মহামারী রূপ নেওয়ায় এখন অনেক দেশেই প্রয়োজনের তুলনায় টেস্ট কিটের স্বল্পতা আলোচনায় আসছে। যুক্তরাষ্ট্রে বিষয়টি নিয়ে জনমনে অসন্তোষের মধ্যে সম্প্রতি তাদের দেশের একটি কোম্পানির কিট দিয়ে এই পরীক্ষার চালানোর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। ওই কিটের মাধ্যমে মাত্র ১৫ মিনিটের মধ্যে করোনাভাইরাস পজিটিভি না নেগেটিভ সেই ফল পাওয়া যাবে।গণস্বাস্থ্যের ট্রাস্টি জাফরুল্লাহও বলছেন, তাদের উদ্ভাবিত কিট দিয়েও মাত্র ১৫ থেকে ২০ মিনিটের মধ্যে নভেল করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফল পাওয়া যাবে।এই কিট উদ্ভাবন করেছেন গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিটিক্যালসের প্রধান বিজ্ঞানী বিজন কুমার শীল।

এই পদ্ধতিতে একজন রোগীর শরীর থেকে রক্ত নিয়ে পরীক্ষা করে বলা হবে কোভিড-১৯ পজিটিভ না নেগেটিভ। তিন মাস আগে চীন থেকে ছড়িয়েপড়া নভেল করোনাভাইরাস এখন বিশ্বের দুই শতাধিক দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। বিশ্বে অতি সংক্রামক এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা আট লাখ ছাড়িয়েছে, মৃত্যু হয়েছে ৪০ হাজারের বেশি মানুষের।আইইডিসিআরের তথ্য মতে, গত ২৪ ঘণ্টায় বাংলাদেশে নতুন করে আরও তিনজনের মধ্যে এ ভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৪ জনে; মৃত্যু ঘটেছে ৬ জনের।।