শনিবার ৬ লাখ শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস খাওয়াবে ডিএনসিসি

image_titleএদিন ৬ মাস থেকে ১১ মাস বয়সী শিশুদের একটি নীল রংয়ের ভিটামিন এ ক্যাপসুল এবং ১২ মাস থেকে ৫৯ মাস বয়সী সকল শিশুকে একটি লাল রঙের ভিটামিন এ ক্যাপসুল বিনামূল্যে খাওয়ানো হবে বলে জানিয়েছে করপোরেশন।বৃহস্পতিবার গুলশানের ডিএনসিসি নগর ভবনে আয়োজিত সেমিনারে এ তথ্য দেওয়া হয়।আগামি শনিবার সকাল ১০টায় মিরপুর মাজার রোডের নেকিবাড়িরটেক নগর মাতৃসদন থেকে ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ডিএনসিসির ভিটামিন এ প্লাস কর্মসূচি উদ্বোধন করবেন।সেমিনারে বলা হয়, ১ নম্বর ওয়ার্ড থেকে ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডে ভিটামিন এ প্লাস কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে ডিএনসিসি।

আর ৩৭ নম্বর ওয়ার্ড থেকে ৫৪ নম্বর ওয়ার্ড এলাকায় শিশুদের ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়াবে ঢাকা সিভিল সার্জন কার্যালয়।শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো নিয়ে সেমিনারে উপস্থিত বক্তারা বলেন, শিশুর সুস্থভাবে বেঁচে থাকা, স্বাভাবিক বৃদ্ধি ও দৃষ্টি শক্তির জন্য ভিটামিন এ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি। ভিটামিন এ চোখের স্বাভাবিক দৃষ্টি শক্তি ও শরীরের স্বাভাবিক বৃদ্ধি বজায় রাখে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি।ভিটামিন এ এর অভাবে রাতকানাসহ চোখের অন্যান্য রোগ, শরীরের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ব্যাহত হওয়া, রক্ত শূন্যতা এমনকি শিশুর মৃত্যুও হতে পারে।সরকারের স্বাস্থ্য নীতিমালা অনুযায়ী, বছরে দুইবার ভিটামিন এ এর অভাব পূরণে সম্পূরক খাদ্য হিসেবে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়।এবার করপোরেশনের আওতায় এক হাজার ৪৯৯টি কেন্দ্রে এসব ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে বলে জানিয়েছে ডিএনসিসি।এরমধ্যে ৪৯টি স্থায়ী কেন্দ্র। এসব কেন্দ্রে ২ হাজার ৯৯৮ জন স্বাস্থ্যকর্মী শিশুদের ভিটামিন  এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর দায়িত্ব পালন করবেন।ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোমিনুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবদুল হাই, উপ-প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা লে. কর্নেল মোস্তফা সারওয়ার, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মো. এমদাদুল হকসহ স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।।