বায়ু দূষণ থেকে টাক পড়া সমস্যা

image_titleদক্ষিণ কোরিয়ার এক প্রসাধনী নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের অর্থায়নে সম্পাদিত এক গবেষণায় বায়ু দূষণের সঙ্গে অকালে চুল পড়ে যাওয়ার সম্পর্ক খুঁজে পাওয়া গেছে।গবেষণা অনুযায়ী, বাতাসের সাধারণ দূষিত উপাদানের সংস্পর্শে আসার কারণে চুলের বৃদ্ধি ও চুলের গোড়া শক্ত করার জন্য প্রয়োজনীয় চারটি প্রোটিনের মাত্রা কমতে থাকে। বাতাসে এই দূষিত উপাদানের মাত্রা বাড়লে তাদের এই ক্ষতিকর প্রভাবের তীব্রতাও বাড়ে। ফলে যারা শহুরে এবং বাণিজ্যিক এলাকায় বসবাস করেন তাদের মাথায় অকালে টাক পড়ার আশঙ্কা গুরুতর।

প্রথমবারের মতো বায়ু দূষণ ও টাক পড়ার মধ্যে সম্পর্ক স্থাপন করেছে এই গবেষণা।গবেষণার প্রধান গবেষক হিয়াক চল চুল কেয়োক, মাদ্রিদে অনুষ্ঠিত ২৮তম ইউরোপিয়ান অ্যাকাডেমি অফ ডার্মাটোলজি অ্যান্ড ভেনেরোলজি কংগ্রেস য়ে এই গবেষণার ফলাফল উপস্থাপন করেন।তিনি বলেন, চুলের ফলিকল বাতাসে মিশে থাকা সাধারণ দুষিত উপাদান সংস্পর্শে আসলে কী ঘটে সেটাই পর্যবেক্ষণ করেছি আমরা। জীবাশ্ম জ্বালানি পোড়ানোর কারণে সৃষ্ট দুষিত উপাদানগুলো মানুষের মাথার ত্বকের কোষের সংস্পর্শে আসলে সেখানকার যেসব প্রোটিন চুল ধরে রাখা এবং তার বৃদ্ধির জন্য জরুরি সেগুলো উল্লেখযোগ্য হারে কমে যায়। বায়ু দূষণ নিয়ে সচেতনতা তৈরিতে তৎপর জেনি ব্যাটেস বলেন, বাতাসে মিশে থাকা দূষিত উপাদান আমাদের শরীর ও স্বাস্থ্যের কতটা ক্ষতি করছে তা অনুধাবন করার আরেকটি দিক হল নতুন এই গবেষণা। পরিবেশ দূষণকারী যানবাহন ব্যবহার থেকে মানুষকে ফিরিয়ে আনতে সবার এগিয়ে আসতে হবে। আরও পড়ুন-চুল পড়া রোধে প্রাকৃতিক উপায়  কম বয়সে চুল পড়লে  খালি মাথায় চুলের চাষ  চুল পড়ার শারীরিক কারণ  ।