ছাত্রদলের সভাপতি-সম্পাদকের চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ

চূড়ান্ত তালিকায় সভাপতি পদে ৮ জন এবং সাধারণ সম্পাদক পদে ১৯ জনকে বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। এদের মধ্য থেকে আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর কাউন্সিলরদের ভোটাভুটিতে দুই শীর্ষ নেতা নির্বাচিত হবেন।সভাপতি পদে বৈধ প্রার্থীরা হলেন- কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, মাহমুদুল হাসান বাপ্পি, হাফিজুর রহমান, রিয়াদ মো. তানভীর রেজা রুবেল, মো. এরশাদ খান, মো. ফজলুর রহমান খোকন, এসএম সাজিদ হাসান বাবু ও এবিএম মাহমুদ আলম সরদার।সাধারণ সম্পাদক পদে বৈধ প্রার্থীরা হলেন- মো. জাকিরুল ইসলাম জাকির, মোহাম্মদ কারিমুল হাই (নাঈম), মাজেদুল ইসলাম রুমন, ডালিয়া রহমান, মো. আমিনুর রহমান আমিন, শেখ আবু তাহের, শাহ নাওয়াজ, সাদিকুর রহমান, কে এম সাখাওয়াত হোসাইন, সিরাজুল ইসলাম, মো, ইকবাল হোসেন শ্যামল, মো. জুয়েল হাওলাদার (সাইফ মাহমুদ জুয়েল) মো. হাসান (তানজিল হাসান), মুন্সি আনিসুর রহমান, মো. মিজানুর রহমান শরিফ, শেখ মো. মশিউর রহমান রনি, মোস্তাফিজুর রহমান, সোহেল রানা ও কাজী মাজহারুল ইসলাম।

তাদের নাম ঘোষণার সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যাচাই-বাছাই কমিটি বৈধ সভাপতি হিসেবে ১৩ জন এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ৩০ জন প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেন। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থিতার ক্ষেত্রে যারা শর্তাবলী পূরণ করতে পারেনি, তারা পরবর্তীতে আপিল করেন, আপিলেও যারা বাদ পড়েছিলেন, তারাও রিভিউর জন্য আবেদন করেন। আপিল ও রিভিউ শেষে সাধারণ সম্পাদক পদে ৬ জন প্রার্থীর প্রার্থিতা ফিরে পান। ছাত্রদলের সভাপতি পদে প্রার্থী হতে ২৭ জন এবং সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হতে ৮৯ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন।চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের পর মঙ্গলবার থেকে প্রার্থীরা প্রচার চালাতে পারবেন, যা চলবে ১২ সেপ্টেম্বর মধ্য রাত পর্যন্ত।এই নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য সাবেক ছাত্রদল নেতা খায়রুল কবির খোকনের নেতৃত্বে ৭ সদস্যের নির্বাচন পরিচালনা কমিটি, ফজলুল হক মিলনের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের বাছাই কমিটি ও শামসুজ্জামান দুদু র নেতৃত্বে ৩ সদস্যের আপিল কমিটি গঠন করা হয়। ।