বৃষ্টির দিনে চা, সঙ্গে টা

image_title

সময় বিকেল। বৃষ্টি শুরু হলো বলে। এই আবহাওয়ায় মাথায় ঘুরছে এক কাপ গরম চা। সঙ্গে যদি পাওয়া যায় কুড়মুড়ে খাবার।

বিকেলটাই হয়ে যাবে স্বাদে ভরপুর। রেসিপি দিয়েছেন জেবুন্নেসা বেগম। 

মেথি চা

উপকরণ
মেথি ২ টেবিল চামচ, লেবুর রস ১ চা-চামচ, দারুচিনি ২ টুকরা, লবঙ্গ কয়েকটা, গোলমরিচ ২-৩টা, মধু ২ টেবিল চামচ, পানি ৩ কাপ, পুদিনাকুচি ২ চা-চামচ। 

প্রণালি
মেথি পরিষ্কার করে ধুয়ে ৩ কাপ পরিমাণ পানি দিয়ে ১০ মিনিট ফোটান। পানি ফোটানোর সময় এর সঙ্গে লবঙ্গ, দারুচিনি ও গোলমরিচ দিন। ফুটন্ত চা ছেঁকে কাপে ঢালুন। পুদিনাকুচি, লেবুর রস ও মধু মিশিয়ে পরিবেশন করুন।

আলুর ঝুড়িতে ছোলা চাট 

উপকরণ
বড় আলু ৪টি, কর্নফ্লাওয়ার দেড় টেবিল চামচ, লবণ পরিমাণমতো, পাপড়িকা ১ চা-চামচ, কাবলি বুট ১ কাপ, তেঁতুলের পিউরি ১ কাপ, চিনি পৌনে এক কাপ, চাট মসলা ১ চা-চামচ, গুঁড়া করা শুকনা মরিচ ২ চা-চামচ, মেথিগুঁড়া আধা চা-চামচ, শুকনা মরিচগুঁড়া আধা চা-চামচ, আদাগুঁড়া আধা চা-চামচ, কাঁচা মরিচ ২-৩টি, ধনেপাতা ১ কাপ, লেবুর রস ১ টেবিল চামচ, টমেটোকুচি ৩ টেবিল চামচ, পেঁয়াজকুচি ৩ টেবিল চামচ। 

প্রণালি
১টি আলু সেদ্ধ করে কিউব আকারে কেটে রাখুন। অন্য আলু কুচি করে কেটে নিন। পরিষ্কার পানিতে ধুয়ে পানি ভালোভাবে ঝরিয়ে নিন। কর্নফ্লাওয়ার, পাপড়িকা ও সামান্য লবণ মেখে আলুকুচি ভালোভাবে মেশান। একটা চা–ছাঁকনিতে কুচানো আলু ছড়িয়ে এর ওপর আরেকটা একই মাপের ছাঁকনি দিয়ে চেপে ডুবো তেলে ভেজে নিন। কাবলি বুট ৫-৬ ঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে লবণ পানিতে সেদ্ধ করে নিন। সেদ্ধ আলুর টুকরো, সেদ্ধ কাবলি বুট, পেঁয়াজকুচি, টমেটোকুচি ভাজা আলুর ঝুড়িতে রাখুন। একটা প্যানে তেঁতুলের পিউরি, চিনি, চাট মসলা, মেথি, শুকনা মরিচ ও আদার গুঁড়া মেশান।

৩-৪ মিনিট নেড়ে ঘন হলে নামিয়ে গুঁড়া শুকনা মরিচ দিয়ে নেড়ে নিন। কাঁচা মরিচ, ধনেপাতা, লেবুর রস ও সামান্য লবণ একসঙ্গে বিট করে নিন। এবার আলুর ঝুড়ির ছোলার ওপর তেঁতুলের সস, কাঁচা মরিচ ও ধনেপাতার মিশ্রণ ছড়িয়ে দিয়ে পরিবেশন করুন। ইচ্ছে হলে সামান্য টকদই ও ঝুরা চানাচুরও দিতে পারেন।

পটেটো ওয়েজেস

উপকরণ
মাঝারি আলু ৬টি, ময়দা পৌনে এক কাপ, চিলি ফ্লেক্স ১ চা-চামচ, রোজমেরি আধা চা-চামচ, ওরিগানো আধা চা-চামচ, চিকেন স্টক কিউব ১টি, তেল ভাজার জন্য, লবণ সামান্য, পাপড়িকা আধা চা-চামচ, পানি ২ টেবিল চামচ। 

প্রণালি
প্রতিটি আলু লম্বা ছয় টুকরা করে কাটুন। সামান্য লবণ পানিতে আলু আধা সেদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে রাখুন। ময়দার সঙ্গে রোজমেরি, ওরিগানো, পাপড়িকা, চিকেন স্টক কিউব, চিলি ফ্লেক্স ও পানি দিয়ে ঘন মিশ্রণ তৈরি করুন। এবার আধা সেদ্ধ আলু মিশ্রণে গড়িয়ে ডুবো তেলে ভেজে নিন।

ক্রিসপি প্রন স্টিক

উপকরণ
চিংড়ি ১০–১২টি, নুডলস আধা প্যাকেট, ময়দা ১ কাপ, গোলমরিচের গুঁড়া আধা চা-চামচ, পেঁয়াজ পাউডার ১ চা-চামচ, রসুন পাউডার আধা চা-চামচ, লবণ পরিমাণমতো, ফিশ সস ১ চা-চামচ, লেবুর রস আধা চা-চামচ, সাসলিক কাঠি ১০–১২টা, তেল ভাজার জন্য।

 প্রণালি
চিংড়ির লেজের অংশ রেখে বাকি ওপরের শক্ত অংশ (মাথাসহ) ফেলে দিন। পরিষ্কার করে ধুয়ে চিংড়ি মাছে ফিশ সস ও লেবুর রস মেখে ১০ মিনিট রেখে দিন। এরপর টিস্যু পেপার দিয়ে মুছে নিন যাতে কোনো পানি না থাকে। ময়দার সঙ্গে গোলমরিচের গুঁড়া, পেঁয়াজ পাউডার, রসুন পাউডার, লবণ মেখে নিন। প্রতিটি চিংড়ি সাসলিক কাঠিতে ঢুকিয়ে ময়দার মিশ্রণে গড়িয়ে নিন। সেদ্ধ নুডলস দিয়ে এবার চিংড়িগুলো জড়িয়ে নিন। ডুবো তেলে ভেজে সসের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

তেঁতুলের চা

উপকরণ
পাকা তেঁতুল ২টি, চিনি/গুড় ৩ টেবিল চামচ বা স্বাদমতো, বিট লবণ দেড় চা-চামচ, কাঁচা মরিচকুচি ২ চা-চামচ, চা–পাতা আধা চা-চামচ, পানি দুই কাপ। 

প্রণালি
তেঁতুল সামান্য কুসুম গরম পানিতে ভিজিয়ে ছেঁকে তেঁতুলের পিউরি বের করে নিন। ৩ কাপ পানি ১০ মিনিট ফুটিয়ে চা–পাতা দিতে হবে। চা–পাতাসহ পানি কয়েক মিনিট ফুটিয়ে চা–পাতা ছেঁকে নিন। চায়ের লিকারের সঙ্গে তেঁতুলের পিউরি, চিনি/গুড় ১ টেবিল চামচ বা স্বাদমতো, কাঁচা মরিচকুচি দিয়ে আরও কয়েক মিনিট ফুটিয়ে কাপে ঢালুন। সামান্য কাঁচা মরিচকুচি ওপরে দিয়ে পরিবেশন করুন।