নাশতা যখন বিদেশি

image_title

ছুটির দিন সকালে তাড়াহুড়ো থাকে না। এদিনের নাশতা হতে পারে একটু অন্য রকম। একঘেয়েমি কাটাতে বিদেশি নাশতাও তৈরি করা যেতে পারে পরিবারের সবার জন্য। বাড়িতে যা থাকে, তা দিয়েই নাশতায় আনতে পারেন ভিন্নতা।

রেসিপি দিয়েছেন সাবিহা মুনমুন


আমেরিকান স্টাফড এগ

উপকরণ: ডিম ৪টি, তরল দুধ আধা কাপ, পেঁয়াজ কিউব ৪ টেবিল চামচ, ক্যাপসিকাম কিউব করে কাটা ২ টেবিল চামচ, মুরগির বুক কুচি করা আধা কাপ, লবণ ১ চা-চামচ, সাদা গোলমরিচ আধা চা-চামচ, বোতাম মাশরুম ১ কাপ, গরুর সালামি ১ কাপ, অ্যাভোকাডো ১টি, গলানো মাখন পরিমাণমতো।

প্রণালি: প্রথমে ২ টেবিল চামচ গলানো মাখন তাওয়ায় দিয়ে তার মধ্যে পেঁয়াজ কিউব, মুরগির বুক, লবণ, সাদা গোলমরিচ, বোতাম মাশরুম, ক্যাপসিকাম কিউব, লবণ দিয়ে ভেজে নিতে হবে। এবার ডিমগুলোকে বিটার দিয়ে বিট করে নিন। সঙ্গে তরল দুধ দিতে হবে। তাওয়ায় মাখন ব্রাশ করে তার মধ্যে ডিমের মিশ্রণ ঢেলে দিতে হবে। একটু শক্ত হলে মাঝখানে মুরগির পুর দিয়ে ডিমটাকে ভাঁজ করে দিন। রোল বানিয়ে প্লেটের ওপর রেখে দিতে হবে। তার ওপর একটা করে স্লাইস চিজ দিতে হবে গরম অবস্থায়। এবার গরুর সালামি ১ টেবিল চামচ মাখনে ভেজে ওপরে দিয়ে দিন। তার ওপর অ্যাভোকাডো স্লাইস দিন। সাজানোর জন্য রেড ক্যাপসিকামের সঙ্গে ২ টুকরা পাউরুটি টোস্ট করে দিতে পারেন।


বাদামি আলুর সঙ্গে ডিম

উপকরণ: গ্রেট করা আলু ২ কাপ, বরফশীতল পানি ২ কাপ, মাখন (গলানো) আধা কাপ, ডিম ২টা।

প্রণালি: আলুর খোসা ছিলে, গ্রেটার দিয়ে গ্রেট করে ধুয়ে নিতে হবে। পানিতে ভিজিয়ে দুই থেকে তিনবার ধুয়ে ঠান্ডা পানিতে আধা ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন। এবার পানি ছেঁকে ভালো করে কাপড়ে শুকনা করে মুছে নিতে হবে।

১০ মিনিট বাতাসে রেখে দিন।

এবার চুলায় বসানো পাত্রে মাখন ব্রাশ করে নিন। মাঝারি গরম হলে আলুর কুচিগুলো একসঙ্গে ছড়িয়ে দিন। খেয়াল রাখুন আলুর কুচি যেন জমাট বেঁধে থাকে। এবার ঢেকে রাখতে হবে ৩ মিনিট। ৫ মিনিট পরে ঢাকনা খুলে সাদা গোলমরিচের গুঁড়া ছিটিয়ে দিন। এবার উল্টে দিতে হবে। ঢেকে রাখুন আবার। ৩ মিনিট পরে সোনালি বাদামি হলে টিস্যুতে উঠিয়ে রাখুন।

চুলায় আরেকটি তাওয়া বসিয়ে মাখন ব্রাশ করে ডিম ছেড়ে দিতে হবে। ডিমের এক পাশ শক্ত হলে প্লেটে তুলে কুসুমের দিকটা ওপরে রেখে লবণ ও গোলমরিচের গুঁড়া ছিটিয়ে পরিবেশন করুন। চাইলে গরুর বেকন বা সালামি মাখনে ভেজে সঙ্গে দিতে পারেন।


ক্রেপে শাক–মাশরুম

উপকরণ:

১. ক্রেপের জন্য: ময়দা ২ কাপ, ডিম ৬টা, সাদা গোলমরিচ গুঁড়া ১ চা-চামচ, তরল দুধ ২ কাপ, গলানো মাখন আধা কাপ, ব্রাশের জন্য মাখন পরিমাণমতো।

২. পালং বা যেকোনো সবুজ শাক ২ কাপ, মাখন ১ টেবিল চামচ, মাশরুম ১ কাপ, স্লাইস চিজ ২ টেবিল চামচ, লবণ আধা চা-চামচ (সব একসঙ্গে ভেজে নিতে হবে)।

প্রণালি: প্রথমে ময়দা চালনিতে চেলে নিতে হবে। এবার ওই চেলে নেওয়া ময়দার সঙ্গে প্রথমে তরল দুধ ভালো করে মিশিয়ে নিন। এবার ডিম ফেটিয়ে মেশাতে হবে। কিছুক্ষণ পর গলানো মাখন মিশিয়ে নিন। এভাবে আধা ঘণ্টা রেখে দিতে হবে। এবার তাওয়াতে মাখন ব্রাশ করে গোল চামচে করে মিশ্রণ নিয়ে এক চামচ করে তাওয়াতে দিতে হবে। চারদিকে ঘোরাতে হবে একটু শক্ত হলে আস্তে করে পাশ থেকে কেটে উল্টে নিতে হবে। এবার উঠিয়ে নিন। পুরটা তৈরি করে রুটির মধ্যে লম্বা করে দিয়ে তার ওপর চিজ স্লাইস দিয়ে রোল করে পরিবেশন করুন।


রুটিতে ডিম সালাদ

উপকরণ: রুটি ৬টা, সেদ্ধ ডিম ৪টা, শসা কিউব ১ কাপ, সাদা গোলমরিচ গুঁড়া ১ চা-চামচ, লেবুর রস ১ টেবিল চামচ, সাদা ভিনেগার আধা চা-চামচ, চিনি আধা চা-চামচ, লবণ ১ চা-চামচ, মেয়োনিজ আধা কাপ ও মাখন পরিমাণমতো।

প্রণালি: রুটিগুলোকে তাওয়ায় টোস্ট করে নিতে হবে। মাঝখান থেকে অর্ধেক করে নেওয়ার পর এবার মাখন বাদে বাকি সব উপকরণ একসঙ্গে মেখে নিন কাঁটাচামচের সাহায্যে। এবার ওই টোস্ট করা রুটির ওপর মাখন ব্রাশ করে নিন। রুটিগুলোর মধ্যে উপকরণগুলো পুরের মতো করে ভরে কোনাকুনি করে কেটে প্লাস্টিক র‌্যাপে জড়িয়ে পরিবেশন করুন।


মধুর প্যান কেক

উপকরণ: ময়দা ১ কাপ, তরল দুধ ১ কাপ, ডিম ১টা, চিনি ২ টেবিল চামচ, বেকিং পাউডার ২ টেবিল চামচ, লবণ ১ চা-চামচ, সাদা তেল ২ টেবিল চামচ, ম্যাপল সিরাপ পরিমাণমতো।

প্রণালি: প্রথমে ময়দার সঙ্গে চিনি, লবণ, বেকিং পাউডার মিশিয়ে নিতে হবে শুকনা করে। এবার পাত্রের চারদিকে ময়দা ছিটিয়ে তার মাঝখানে প্রথমে দুধ, এরপর ডিম ফেটানো দিয়ে ভালো করে বিটার দিয়ে বিট করে নিন। ১০ মিনিট পরে চুলায় প্যান গরম করে সিকি কাপ মেশানো মিশ্রণ দিতে হবে। ১টা প্যান কেকের জন্য। এভাবে ৪টা প্যান কেক তৈরি করে। একটার ওপর আরেকটা দিয়ে তার ওপর এক টুকরা মাখন দিয়ে তার ওপর ম্যাপল সিরাপ দিয়ে পরিবেশন করুন। ইচ্ছা করলে সঙ্গে ফল ও হুইপ ক্রিম দেওয়া যেতে পারে।