আজও নারীদের স্বপ্নের নায়ক নগ্ন গায়ের সৌরভ গাঙ্গুলি

এটা বলা হয়ে থাকে, ভারতে আর কিছু বিক্রি না হোক, ক্রিকেট বিক্রি হয়। ক্রিকেট নিয়ে দেশটির মানুষের আবেগ সবকিছুর ঊর্ধ্বে। সব ভেদাভেদ ভুলে বৈষম্যের দেশ ভারত এক হয়ে যায় ক্রিকেট মাঠে জয়ের প্রার্থনায়।
ভারতীয় ক্রিকেটের ইতিহাস অনেক সমৃদ্ধ।

অনেক প্রাপ্তি রয়েছে তাদের ঝুলিতে। সেই সব ইতিহাসের অনেক স্মৃতি নস্টালজিয়ায় ফিরে আসে শক্তি হয়ে, প্রেরণা হয়ে। তেমনি একটি লর্ডসের মাঠে নগ্ন গায়ে সৌরভ গাঙ্গুলির জার্সি ওড়ানোর দৃশ্য।
সেই দৃশ্য নিয়ে আপত্তি তুলেছিল ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড ও আইসিসি। তাতে কী। দৃশ্যটা লুফে নিয়েছে ভারত। আজও সেই দৃশ্যের কারণেই সৌরভ গাঙ্গুলি ভারতীয়দের কাছে একটা আবেগের নাম।
সেই আবেগ নতুন করে ফিরে এলো চলচ্চিত্রের হাত ধরে। যেখানে দেখানো হয়েছে উদ্দম তারুণ্য উদ্দীপ্ত ক্ষ্যাপা সৌরভ সেদিন ভারতীয় আবেগের স্বাধীনতার পতাকা উড়িয়েছিলেন। পরিচালক অভিনব দেও নির্মিত ‘দুসরা’ ছবির ট্রেলার প্রকাশ হয়েছে। সেখানেই দেখা গেল সৌরভের সেই নগ্ন গায়ে জার্সি ওড়ানোর মধ্য দিয়ে কেমন করে ভারতীয় নারীদের লড়াইয়ের নতুন দিক খুলে গেছে।
২০০২ সালে ন্যাটওয়েস্ট ট্রফি জিতে সভ্য লর্ডসের ব্যালকনিতে জার্সি ওড়ানোর মধ্যে কোথাও যেন লুকিয়ে রয়েছে মেয়েদের পাখনা মেলে ওড়ার, স্বপ্ন দেখার লড়াই, যা এই ছবিতে ফুটিয়ে তুলতে চাইছেন পরিচালক রুপালি পর্দায়। পরিচালকের ভাষায়, ‘স্বাধীনতা নয়, নারীদের লড়াইটা সমান অধিকার পাওয়ার। আমি মনে করি সেই সমান অধিকারের লড়াইটা কোনো না কোনোভাবে করতে শিখিয়েছেন সৌরভ গাঙ্গুলি। ফিনিক্স পাখির মতো ওড়ার বার্তা দিয়েছিলেন তিনি জামা উড়িয়ে। তথাকথিত সভ্যদের গাল দিয়ে ভূত ভাগিয়ে তিনি যেন নারীদের শিখিয়েছিলেন, ‘চোখে চোখ রেখে কথা বলো, তবেই পারবে’।


অনেক ছবি রিলিজ হচ্ছে প্রত্যেক শুক্রবার। কিন্তু স্টারডমহীন কোনো একটা ছবির মিনিট দুয়েকের ট্রেলার নিয়ে এত আলোচনা সম্ভবত খুব কমই হয়। ট্রেলার যেন বার্তা দিচ্ছে, সৌরভ যেমন ভারতের আবেগ, নারীও ভারতের আবেগ।
পরিচালকের ভাষায়, ‘১৯৪৭ সালে ভারতের রাজনৈতিক স্বাধীনতা পেয়েছিল ভারত। ১৯৯১-এ অর্থনৈতিক। ২০০২ সালে মিলেছিল আবেগের স্বাধীনতা।’
ছবিটি বলিউডে মুক্তি পাবে শিগগিরই।
দেখুন ছবিটির ট্রেলার 

এলএ/এমকেএইচ