সু চির ‘ফ্রিডম অব অক্সফোর্ড’ অ্যাওয়ার্ড প্রত্যাহার

মিয়ানমারের রাখাইনের বর্বর সেনা নির্যাতনের মুখে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচিকে দেয়া ‘ফ্রিডম অব দি সিটি অব অক্সফোর্ড অ্যাওয়ার্ড’ প্রত্যাহার করেছে ব্রিটেনের অক্সফোর্ড শহরের নগর কাউন্সিল কর্তৃপক্ষ। অক্সফোর্ড সিটি কাউন্সিল ১৯৯৭ সালে গণতন্ত্রের জন্য দীর্ঘ সংগ্রামের জন্য তাকে এই সম্মাননা দেয়।৩ অক্টোবর মঙ্গলবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিয়ানমার রোহিঙ্গা মুসলিমদের প্রতি যে আচরণ করছে, তাতে সুচি আর ‘ফ্রিডম অব দি সিটি’ নামের ওই পুরস্কারের যোগ্য নন বলে অক্সফোর্ড নগর সরকারের প্রধান বলেছেন। ২ অক্টোবর স্থানীয় সময় সোমবার অক্সফোর্ড সিটি কাউন্সিলের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় যে, জাতিসংঘের কাছ থেকে যেসব তথ্যপ্রমাণ আসছে তাতে অং সান সুচি আর ‘ফ্রিডম অব অক্সফোর্ড’ সম্মাননার জন্য যথোপযুক্ত নন।অক্সফোর্ড সিটি কাউন্সিল জানিয়েছে, মিয়ানমারের নেত্রীর জন্য এই সম্মাননা যথোপযুক্ত নয়। সামরিক জান্তার নিয়ন্ত্রণাধীন মিয়ানমারে গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রামের কারণে অং সান সুচি দীর্ঘদিন ইয়াংগুনে গৃহবন্দী ছিলেন। এজন্য তিনি ও তার ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের প্রতীক হিসেবে বিবেচিত হতে থাকেন। ২০১৫ সালে উন্মুক্ত নির্বাচনের মাধ্যমে তার দল সরকার গঠন করে।কিন্তু সম্প্রতি রাখাইনে রোহিঙ্গাদের উপর শুরু হওয়া নতুন সংঘাত ও সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে জাতিগত নিধনের অভিযোগের বিষয়ে নিশ্চুপ থাকায় আন্তর্জাতিক নেতৃত্ব ও সংস্থা তার সমালোচনা করেছে।এছাড়া আগামী মাসের বিশেষ বৈঠকে আনুষ্ঠানিকভাবে এই সম্মাননা প্রত্যাহার করা হবে বলে অক্সফোর্ড সিটি কাউন্সিল সূত্র জানিয়েছে।এর আগে জানা যায়, অক্সফোর্ডের সেন্ট হিউ কলেজ সুচির একটি পোট্রেট প্রদর্শনী থেকে প্রত্যাহার করে নেয়।প্রসঙ্গত, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে গত ১১ আগস্ট সেনা মোতায়েনের পর ২৫ আগস্ট থেকে শুরু হয় রোহিঙ্গা নির্মূল অভিযান। নির্বিচারে গণহত্যা-ধর্ষণ-অগ্নিসংযোগের এ অভিযানের ভয়াবহতা এতটাই তীব্র যে রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো অতীতের সকল বর্বরতা হার মেনেছে। প্রাণ বাঁচাতে পাশ্ববর্তী বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে ৫ লাখ ২০ হাজার রোহিঙ্গা