সিরিজ হার ঠেকাতে পারল না ইংল্যান্ড

পেশাদার ফুটবল ক্যারিয়ারের ১০০০তম ম্যাচ খেললেন স্প্যানিয়ার্ড গোলরক্ষক ইকার ক্যাসিয়াস। কিন্তু দূর্দান্ত মাইলফলক ছোঁয়া এ ম্যাচটা জয়ের রঙে রাঙাতে পারলেন না তিনি। বিশ্বসেরা এ গোলরক্ষকের স্মরণীয় এমন ম্যাচে সোমবার বেলেনেনসেসের কাছে ২-০ গোলে হার দেখে এফসি পোর্তো। ১৯৯৯-এ রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে অভিষেক হয় ক্যাসিয়াসের। শৈশবের এ ক্লাবের জার্সি গায়ে মাঠে নামেন ৭২৫টি ম্যাচে। রিয়ালের হয়ে ১৬ বছরের ক্যারিয়ারে পাঁচটি লা লিগা ও তিনটি চ্যাম্পিয়নস লীগসহ জেতেন অনেক শিরোপা। এরপর ২০১৫তে সান্টিয়াগো বার্নাব্যু ছেড়ে পোর্তোতে যোগ দেন ক্যাসিয়াস। পর্তুগালের এ ক্লাবের হয়ে এখন পর্যন্ত খেলেন ১০৮টি ম্যাচ। এছাড়া স্পেন জাতীয় দলের ১৬৭ ম্যাচ খেলেন ইকার ক্যাসিয়াস। ২০১০-এ বিশ্বকাপের শিরোপা জয়ের কৃতিত্ব রয়েছে এ ৩৬ বছর বয়সী গোলরক্ষকের। ক্রাইস্টচার্চের হেগলি ওভাল মাঠে নিউজিল্যান্ডের সামনে ৩৮২ রানের টার্গেট দেয় ইংল্যান্ড। যেখানে টেস্ট ড্র করলেই সিরিজ জয় সম্ভব, সেখানে পাহাড় ডিঙানোর আগ্রহ ছিল না কিউইদের। অন্যদিকে সিরিজ হার এড়াতে জয়ের বিকল্প ছিল না ইংলিশদের। শেষ দিনে কিউইদের অলআউট করতে হতো তাদের। কিন্তু ইশ সোধির শেষ দিকের ব্যাটিং দৃঢ়তায় দ্বিতীয় টেস্ট ড্র করল নিউজিল্যান্ড। আর দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ ১-০ ব্যবধানে জিতে নিল তারা। ম্যাচসেরা হয়েছেন টিম সাউদি। এর আগে অকল্যান্ডে সিরিজের প্রথম টেস্টে ইংল্যান্ডকে ইনিংস ও ৪২ রানে হারায় নিউজিল্যান্ড। আগের দিনের ৪২ রান নিয়ে পঞ্চম দিন শুরু করেন দুই কিউই ওপেনার টম ল্যাথাম ও জিত রাভাল। কিন্তু দিনের শুরুতেই পরপর দুই বলে রাভাল ও কেন উইলিয়ামসনকে আউট করে সফরকারীদের জয়ের আশা দেখান স্টুয়ার্ট ব্রড। এরপর ১৩ রান করে আউট হন রস টেইলর। ১৩ রান করা হেনরি নিকোলসকে ফেরান জেমস অ্যান্ডারসন। নিউজিল্যান্ডের দলীয় স্কোর তখন ৪ উইকেটে ৯১। ব্যাট হাতে টম ল্যাথাম তখনো এক প্রান্তে ছিলেন অবিচল। নিউজিল্যান্ড তাদের পঞ্চম উইকেট হারায় ১৩৫ রানে। দলীয় ১৬২ রানের মাথায় লিকের বলে আউট হন ল্যাথামও। ২০৭ বলে ৮৩ রান করেন তিনি। স্বাগতিকদের সপ্তম উইকেট যায় ২১৯ রানে। আর অষ্টম উইকেট খোয়ায় ২৫৬ রানে। পরে ৫৬ রানে অপরাজিত থেকে ড্র নিশ্চিত করেন ইশ সোধি। ইংল্যান্ডের হয়ে দুইটি করে উইকেট নেন স্টুয়ার্ট ব্রড, মার্ক উড ও লিক। এর আগে প্রথম ইনিংসে ৮ উইকেটে ৩০৭ রান করে সফরকারী ইংল্যান্ড। সেঞ্চুরি করেন বেয়ারস্টো। ৮৭ রানে ৪ উইকেট নেন ট্রেন্ট বোল্ট। আর টিম সাউদি ৬২ রানে নেন ৬ উইকেট। দ্বিতীয় ইনিংসে ২৭৮ রান করে অল আউট হয়ে যায় স্বাগতিকরা। জেমস অ্যান্ডারসন ও স্টুয়ার্ট ব্রড মিলে নেন কিউইদের সব কটি উইকেট। অ্যান্ডারসন ৭৬ রানে ৪টি ও ৫৪ রানে ৬ উইকেট নেন ব্রড।