মাদকের ডন যে দলের হোক কেউই ছাড় পাবে না : ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মাদকের ডন বা গডফাদার যে দলের কিংবা যেই হোক না কেন, কেউই ছাড় পাবে না।তিনি বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে শেখ হাসিনার সরকারই প্রথম কথা বলেছে, অন্য কোনো সরকার বলেনি। মিয়ানমার শুধু রোহিঙ্গা পাঠায়নি, সে াতের মতো এদেশে ইয়াবাও পাঠিয়েছে। তাই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ ও সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলে মাদক নির্মূল করতে হবে।নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার আধুরিয়া এলাকায় ‘ঢাকা-সিলেট জাতীয় মহাসড়কে যানজট নিরসনকল্পে করণীয় নির্ধারণ বিষয়ক’ এক সভায় শুক্রবার সকালে তিনি এসব কথা বলেন।এ সময় তিস্তা চুক্তি ও রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, তিস্তা চুক্তি ও রোহিঙ্গা বিষয়ে ভারত সরকারের সঙ্গে কথা বলেছি। সেখানে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে একটি কথাও বলিনি। এখন ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের যে সম্পর্ক রয়েছে, এতে সমস্যাগুলো সমাধান হবে বলে আমি আশা করছি।তিনি বলেন, ‘আমরা আন্তরিকভাবে সমস্যার সমাধান চাই। সীমান্ত চুক্তির মতো চ্যালেঞ্জিং কাজ আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি করে ফেলেছেন। সে তুলনায় এটা কোনো সমস্যাই নয়। এ সমস্যারও সমাধান হবে। প্রধানমন্ত্রী কলকাতায় গেছেন। সেখানে নরেন্দ্র মোদি, মমতা ব্যানার্জি থাকবেন। এ ব্যাপারে কথা হবে, আমি এখানে বসে বলতে পারি না রেজাল্টা কী হবে। তবে এটা বলি, এই সফরে চুক্তি না হলেও অগ্রগতি হবে।’যানজট বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, রমজান ও ঈদকে সামনে রেখে যানজট সহনীয় পর্যায় আনতে ফিটনেসবিহীন গাড়ি, অবৈধ নসিমন, করিমন চলাচল বন্ধ করতে হবে। তেলবাহী গাড়ি ছাড়া সব ধরনের মালবাহী বা ভারি যানবাহন বন্ধ করে দেয়া হবে। সাধারণ মানুষের সুবিধার্থে আমিসহ কোনো ভিআইপি যদি আইন ভঙ্গ করে উল্টোপথে গাড়ি চালিয়ে যায়, তাহলে তাদের বিরুদ্ধে পুলিশ প্রশাসন যথাযথ ব্যবস্থা নেবে।মহাসড়কে চাঁদাবাজির বিষয়ে তিনি বলেন, কিছুসংখ্যক পুলিশ রয়েছে, যারা চাঁদাবাজির সঙ্গে জড়িত; ওইসব পুলিশের সঙ্গে রাজনৈতিক নেতাকর্মীও জড়িত রয়েছে। যদি কারও বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ ওঠে, তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন।ভুলতা ফ্লাইওভারের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, এখন পর্যন্ত ভুলতা ফ্লাইওভারের প্রায় ৭০ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। আর ৩০ ভাগ বাকি। আগামী অক্টোবরে কাজ শেষ করে চালু করা হবে।সভায় উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী, নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ নজরুল ইসলাম বাবু, নরসিংদী জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন, ডিআইজি আবদুল মালেক, রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল ফাতে মোহাম্মদ সফিকুল ইসলাম প্রমুখ।দুর্নীতি প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগের তিনজন এমপি দুদকের মামলায় হাজিরা দিচ্ছে। একজন মন্ত্রীপুত্র কারাগারে রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে কোনো অপরাধীর ছাড় নেই।সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুই ঘণ্টাব্যাপী এ মতবিনিময় সভায় সেতুমন্ত্রী নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও সড়ক যোগাযোগ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে মহাসড়কের সমস্যার কথা শোনেন।মন্ত্রী তাদের নিজ নিজ দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করার জন্য কঠোর নির্দেশ দেন। মহাসড়কগুলোকে সচল রাখার নির্দেশ দেয়ার পাশাপাশি গাড়ি থামিয়ে অর্থ আদায় না করতে ট্রাফিক পুলিশকে সতর্ক করে দেন।আলোচনা সভার আগে ওবায়দুল কাদের ভুলতা ফ্লাইওভার পরিদর্শন করেন।