প্রিয়জনের জন্য কান্না

বাংলাদেশে সব দলের অংশগ্রহণে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনের তাগিদ দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র বলেছে- এমন ভোট হওয়া প্রয়োজন যাতে দেশের মানুষের ইচ্ছা-আকাঙ্খার সত্যিকারের প্রতিফলন ঘটে। ঢাকা সফররত মার্কিন দাতব্য সংস্থা ইউএসএআইডি’র প্রশাসক মার্ক গ্রিন সকালে এক গোলটেবিল বৈঠকে এ তাগিদ দেন। আমেরিকান ক্লাবে আয়োজিত ওই বৈঠকে সাংবাদিকরাও আমন্ত্রিত ছিলেন। বৈঠকে মার্কিন প্রশাসক বলেন- বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র পরস্পরের যথার্থ বা কার্যকর বন্ধু। এ বন্ধুত্ব গড়ে উঠেছে পারস্পরিক মূল্যবোধের ভিত্তিতে। এখানে আমরা একে অন্যের সঙ্গে খোলাখুলি এবং সততার সঙ্গে কথা বলছি। মার্ক গ্রিন বলেনÑ অভিজ্ঞতা বলছে, দীর্ঘমেয়াদি টেকসই ও সফল অর্থনৈতিক উন্নয়নে ক্রিয়াশীল গণতান্ত্রিক সুশাসন অপূরণীয় উপাদান। বাংলাদেশে বিরোধী নেতাদের বিরুদ্ধে চলমান আটক অভিযান (অনগোয়িং অ্যারেস্ট), বিচারবহির্ভূতভাবে হয়রানী এবং সাংবাদিকদের গ্রেফতারে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে মার্কিন ওই জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন- এসব বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের সত্যিকারের সব বন্ধুরা উদ্বিগ্ন। তিনি রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে কথা বলেন। জানান, এ সংকট মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্র ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশের সঙ্গে মিলে কাজ করছে। আসন্ন বর্ষা মৌসুমে এ সংকট আরও ঘনিভূত হওয়ার আশংকা ব্যক্ত করে তিনি এটি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আরও বেশী মনোনিবেশ করার ওপর জোর দেন। গত ১৩ই মে মার্ক বাংলাদেশে আসেন। তিনি এরইমধ্যে সরজমিনে রোহিঙ্গাদের অবস্থা দেখে এসেছেন। ক্যাম্প এলাকায় গিয়ে তিনি ট্রাম্প প্রশাসনের তরফে অতিরিক্ত ৪৪ মিলিয়ন ডলার সহায়তার ঘোষণাও দিয়েছেন। ওদিকে বুধবার বিকালে পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হকের সঙ্গে বৈঠকেও বাংলাদেশে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখার আকাঙ্খা ব্যাক্ত করেন মার্কিন প্রশাসক। সেখানে ইএসএআইডির কর্মী জুলহাস মান্নান হত্যার বিচারের অগ্রগতিও জানতে চান বলে দূতাবাসের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। ইসরাইলিদের গুলিতে প্রিয়জনদের হারিয়ে শোকাহত গাজা। আকাশে বাতাসে যেন এখনও আর্তনাদের শব্দ শোনা যায়। প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে ইসরাইলি সেনাদের গুলিতে নিহত হয়েছেন এ যাবত অসংখ্য ফিলিস্তিনি। তাদেরই একজন ১৮ বছর বয়সী বিলাল আল আশ্রাম। তার মা নিমা আবদেল কাদের এখনও বিশ্বাস করতে পারেন না তার ছেলে নেই। বিলাল তার হাই স্কুল পড়াশোনার শেষ বর্ষের ছাত্র ছিলেন। মঙ্গলবার গাজা উপত্যকায় প্রতিবাদ বিক্ষোভে অংশগ্রহণকালে তার মাথায় গুলি করে ইসরাইলি সেনারা। সন্তানের মুখ মনে করে মা নিসমা কান্নায় ভেঙে পড়ছেন। কখনো তাকিয়ে থাকছেন দূরে। আর গন্ড গড়িয়ে পড়ছে তার অশ্রু। বিলাল ছিলেন তার প্রথম সন্তান। তাই তাকে তিনি তার জীবনের সব কিছু মনে করতেন। নিসমা বলেন, সে ছিল আমার কাছে সারা পৃথিবীর সমান। সে ছিল আমার সাপোর্ট সিস্টেম। নিসমার আট সন্তানের মধ্যে বিলাল সবার বড়। গত ৬ বছর ধরে তার পিতা অবস্থান করছেন জর্ডানে। তার অনুপস্থিতিতে পুরো পরিবারকে একত্রে ধরে রেখেছিলেন বিলাল। নিসমা বলেন, গাজার ওই প্রতিবাদে যেতে বারণ করেছিলেন বিলালকে। কিন্তু বিলাল তার কথা শোনে নি। গত ৩০ শে মার্চ থেকে গাজায় বিক্ষোভ প্রতিবাদ অব্যাহত রয়েছে। ৭০ বছর আগে ইসরাইল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সময় জোর করে উৎখাত করা হয়েছিল যেসব বাড়িঘর ও গ্রামবাসীকে সেই সব ফিলিস্তিনি শরণার্থীরা তাদের পুরনো অধিকার আদায়ের জন্য এ বিক্ষোভ করে যাচ্ছেন। ইহুদি রাষ্ট্র ইসরাইল ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে এই জাতি নিধন চালায় ১৯৪৮ সালে। একে নাকবা বা ভয়াবহ বিপর্যয় বলে আখ্যায়িত করা হয়। এ দিনটিকে প্রতি বছরই পালন করা হয়। ১৯৪৮ সালে বাড়িঘর থেকে জোর করে প্রায় ৭ লাখ ৫০ হাজার ফিলিস্তিনিকে উচ্ছেদ করা হয়। তাদের বেশির ভাগই পরিণত হন আভ্যন্তরীণ শরণার্থীতে। গাজা উপত্যকায় যেসব ফিলিস্তিনি বসবাস করছেন তার শতকরা প্রায় ৭০ ভাগই এসব জনগোষ্ঠীর উত্তরসুরি। তারা সেখানে বসবাস করছেন এক দশক ধরে স্থল, সমুদ্র ও আকাশপথে অবরোধের অধীনে। ইসরাইলি সেনাবাহিনীর অনুমোতি ছাড়া তারা গাজা উপত্যকা ত্যাগ করতে পারেন না। রাফা সীমান্ত যখন উন্মুক্ত থাকে দু’চার দিনের জন্য শুধু তখনই তরা মিশরে যেতে পারেন। এটাই তাদের সামনে একটিমাত্র সুযোগ। ৩০ শে মার্চ থেকে এ বিক্ষোভে ইসরাইলি সেনারা হত্যা করেছে কমপক্ষে ১১১ ফিলিস্তিনিকে। এর মধ্যে রয়েছে আট মাস বয়সী একটি শিশুকন্যা। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ১২০০০ মানুষ। ১৯৪৮ সালে নাকবা বা বাড়িঘর থেকে উচ্ছেদ করা পরিবারের মধ্যে নিহত বিলালের পরিবারও রয়েছে। তাই নিহত হওয়ার আগের দিন তিনি ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। এতে তিনি বলেন, দেশের দক্ষিণে বীর সেব শহরের দিকে যাচ্ছেন তিনি। সেখানে বিক্ষোভে অংশ নেবেন। এই বীর সেব শহরে তার পূর্ব পুরুষদের বসবাস ছিল। এ বিষয়ে তার মা নিসমা বলেন, তাকে নিয়ে আমি খুব ভয়ে ছিলাম। বিক্ষোভে অংশ নিতে সে খুবই উৎফুল্ল ছিল। বিক্ষোভ এক পর্যায়ে ১৫ই মে শান্ত হয়ে আসে। এতে আমি স্বস্তি পাই। মনে হয়, তার বুঝি কিছুই হবে না। কিন্তু বিলালকে হত্যা করা হয়েছে এ কথা আমি এখনও বিশ্বাস করতে পারি না।