খালেদা জিয়ার আদালতে হাজিরা বৃহস্পতিবার

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বৃহস্পতিবার কারাগার থেকে আদালতে হাজির করার দিন ধার্য রয়েছে।রাজধানীর পুরান ঢাকার বকশিবাজার আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে অস্থায়ী আদালতে মামলাটির যুক্তি উপস্থাপনের দিন ধার্য রয়েছে। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত হয়ে ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে পুরান ঢাকার সাবেক কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি আছেন খালেদা জিয়া। গত ২৮ মার্চ খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করার দিন ধার্য থাকলেও অসুস্থতার কারণে তাকে হাজির করা হয়নি। কারা কর্তৃপক্ষ জানায়, তিনি অসুস্থ। এ পর্যায়ে খালেদা জিয়ার জামিন ৫ এপ্রিল পর্যন্ত বর্ধিত করে মামলার পরবর্তী দিন ধার্য করেন ঢাকার পাঁচ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান। সম্প্রতি কারাগারে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের একটি মেডিকেল বোর্ড তাকে দেখে এসেছেন। তারা জানান, খালেদা জিয়া অসুস্থ, তবে গুরুতর নয়। এ বিষয়ে ওই মামলায় দুদকের প্রসিকিউটর মোশাররফ হোসেন কাজল জানান, খালেদা জিয়ার অবস্থা বুঝে কারা কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নেবে। খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, তিনি অসুস্থ। তারপরও সরকারের প্রস্তুতি আছে; দেখা যাক কী করে। কারা অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা সমকালকে বলেন, খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করার প্রস্তুতি তাদের রয়েছে। তবে তিনি অসুস্থ থাকায় বিষয়টি নিয়ে চিকিৎসকদের পরামর্শ নেওয়া হবে।এদিকে কারা মহাপরিদর্শক (আইজি প্রিজন্স) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দীন জানান, কারাগারে খালেদা জিয়ার সব ধরনের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। বুধবার তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে বিমান দুর্ঘটনায় আহত এক যাত্রীকে দেখতে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান। সাক্ষাৎ করেছেন পরিবারের সদস্যরা : বুধবার বিকেলে খালেদা জিয়ার সঙ্গে কারাগারে দেখা করেছেন পরিবারের ছয় সদস্য। তাদের মধ্যে ছিলেন তার কনিষ্ঠ ছেলে মরহুম আরাফাত রহমানের স্ত্রী সৈয়দা শর্মিলা রহমান, নাতি জাহিয়া রহমান, বড় বোন সেলিমা ইসলাম, ভাবি কানিজ ফাতেমা, তাদের সন্তান অভিক এস্কান্দার এবং ভাগ্নে ডা. মো. মামুন। বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত তারা কারাগারে খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। ওই সময়ে তারা খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেন। কারাগার থেকে বেরিয়ে তারা গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেননি। এদিকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করার অনুমতি চেয়েছেন দেশের চার বুদ্ধিজীবী। তারা হলেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদ, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, অধ্যাপক ড. মাহবুবউল্লাহ ও সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ। বুধবার অনুমতি চেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও কারা অধিদপ্তরে তারা আবেদন করেন। বোমা হামলা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন পিছিয়েছে : খালেদা জিয়াসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানের মিছিলে বোমাহামলা মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন আগামী ১৩ মে ধার্য করেছেন আদালত। বুধবার প্রতিবেদন দাখিলের ধার্যকৃত দিনে পুলিশ কোনো প্রতিবেদন দাখিল করতে না পারায় ঢাকা মহানগর হাকিম নুরুন্নাহার ইয়াসমিন এই দিন ধার্য করেন।